আইসিইউ

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঢাকাঃ রাজধানীতে করোনাভাইরাস ডেডিকেটেড বড় ছয়টি হাসপাতালের কোনোটিতেই নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ) ফাঁকা নেই। গতকাল সোমবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ তথ্য জানিয়েছে।

এই ছয়টি হাসপাতালের মধ্যে কুয়েত-বাংলাদেশ মৈত্রী সরকারি হাসপাতালের নির্ধারিত ১৬ বেড, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের ১০টি, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালের ১৬টি, সরকারি কর্মচারী হাসপাতালের ৬টি, রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালের ১৫টি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৬টি বেডের সবগুলোতে রোগী ভর্তি রয়েছে।

অন্যদিকে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২০ বেডের মধ্যে রোগী ভর্তি আছেন ১৯ জন, মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৯ বেডের মধ্যে রোগী ভর্তি আছেন ১৭ জন। অর্থাৎ এ দুই হাসপাতালে আইসিইউ বেড ফাঁকা রয়েছে মাত্র তিনটি। রোগীর চাপের কারণে শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউ বেড স্থাপন করা হয়েছে ১০টি, তাতে রোগী ভর্তি আছেন দুজন। এই হাসপাতালে আটটি বেড ফাঁকা আছে। সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসায় সাধারণ বেড থাকলেও সেখানে আইসিইউ সুবিধা নেই।

  ১৪ এপ্রিল থেকে সাত দিনের লকডাউন

সব মিলিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত সরকারি হাসপাতালের ১২৮টি আইসিইউ বেডে রোগী ভর্তি আছেন ১১৭ জন, বেড খালি রয়েছে মাত্র ১১টি। জানা গেছে, তালিকাভুক্ত বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে মোট আইসিইউ বেড রয়েছে ১৮০টি। এর বিপরীতে রোগী ভর্তি আছেন ১৬৬ জন। বেড ফাঁকা রয়েছে মাত্র ১৪টি।

ঢাকায় অধিদপ্তরের তালিকাভুক্ত সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে বেড রয়েছে ৩০৮টি, এর বিপরীতে রোগী ভর্তি আছেন ২৮৩ জন। বেড ফাঁকা রয়েছে মাত্র ২৫টি।

সারা দেশে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য মোট আইসিইউ বেড রয়েছে ৫৯৮টি, আর রোগী ভর্তি আছেন ৪৩৪ জন। বেড ফাঁকা রয়েছে ১৭৪টি।

আমাদেরবাণী/মৃধা