চিকিৎসকের মৃত্যু

ডেস্ক রিপোর্ট, ঢাকা;  করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশের আরও তিন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় মারা গেছেন অর্ধশত চিকিৎসক। এছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও ৮ জন চিকিৎসক।

  • গতকাল বুধবার (২৪ জুন ২০২০) রাত সাড়ে ১১টার দিকে মারা যান রাজধানীর আল-মানার হাসপাতালের পরিচালক ও ডায়াবেটিস স্পেশালিস্ট ডা. মো. সাইফুল ইসলাম। আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি দুই সপ্তাহেরও বেশি চিকিৎসাধীন ছিলেন।

হাসপাতালের কাস্টমার কেয়ার এক্সিকিউটিভ আসাদুজ্জামান জানান, বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

  • করোনায় মারা গেছেন চট্টগ্রাম আই ইনফার্মারির চিকিৎসক (অবসরপ্রাপ্ত) ডা. শহিদুল আনোয়ার। রাত ১২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (চমেক) আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ডা. শহিদুল আনোয়ার চান্দগাঁওতে বণি হাসান চক্ষু হাসপাতালের কনসালটেন্ট ছিলেন। নগরের জামালখান এলাকায় ব্যক্তিগত চেম্বারেও তিনি রোগী দেখতেন।

চমেক অধ্যক্ষ ডা. শামীম হাসান তিনি বলেন, ‘চক্ষু বিশেষজ্ঞ ডা. শহিদুল আনোয়ার চমেকের ১৫তম ব্যাচের ছাত্র ছিলেন। প্রায় এক মাস আগে তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হন। তাকে প্লাজমা থেরাপিও দেয়া হয়েছিল। আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।’

এর আগে বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর বেসরকারি ইমপালস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন ডা. ইউনুস আলী খান।

  • ফাউন্ডেশন ফর ডক্টরস সেফটি রাইটস অ্যান্ড রেসপন্সসিবিলিটির (এফডিএসআর) যুগ্ম সম্পাদক ডা. রাহাত আনোয়ার চৌধুরী বলেন, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করার পর ডা. ইউনুস আলী খান গত ৫০ বছর ধরে সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরে নিজ এলাকায় মানবসেবায় নিয়োজিত ছিলেন।
  দেশে মোট আক্রান্ত সাত হাজার ৬৬৭ জন, মৃতের সংখায় ১৬৮

এফডিএসআর’র হিসাব অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত ৫০ জন চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরও আট চিকিৎসক।

এদিকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনের সর্বশেষ (২৫ জুন ২০২০) তথ্য অনুযায়ী, দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৯ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। ফলে ভাইরাসটিতে মোট ৬১৬২১ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯৪৬ জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ লাখ ২৬ হাজার ৫৫৩ ।  গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৭ হাজার ৯৯৯টি। শনাক্তের হার ২১.৯২ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৮২৯ জন এবং এ পর্যন্ত সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৫১ হাজার ৪৯৫ জন। সুস্থতার হার ৪০.৬৭% এবং মৃত্যুর হার ১.২৮ শতাংশ। মারা যাওয়া ব্যক্তিদের সম্পর্কে জানানো হয়, পুরুষ ৩২ জন ও নারী ৭ জন। বয়স বিশ্লেষণে জানা যায়, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৩১-৪০ একজন, ৪১-৫০ সাতজন, ৫১-৬০ ৯ জন, ৬১-৭০ ১২ জন এবং ৭১-৮০ সাতজন এবং ৯১ থেকে ১০০ বছরের মধ্যে একজন। হাসপাতালে মারা গেছেন ২৮ জন এবং বাড়িতে ১১ জন। ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনে নেয়া হয়েছে ৬৪৫ জনকে। আইসোলেশন থেকে ছাড় দেয়া হয়েছে ৩৭৪ জনকে।

আমাদের বাণী ডট কম/২৫ জুন ২০২০/পিপিএম