গাড়ি গ্যাসে চালিয়ে বিল তেলের, টাকা ছাড়া মুখ বন্ধ গাজীপুরের শিক্ষা কর্মকর্তার

গাজীপুর জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রেবেকা সুলতানা সিএনজি গ্যাসে গাড়ি চালিয়ে তেলের বিল নেন । এছাড়াও অনেক দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে তার বিরেুদ্ধে। চেয়ারে বসেই দিনের পর দিন এমপিও, টাইমস্কেলসহ বিভিন্ন ইস্যুতে শিক্ষকদের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের ঘুষ নিয়ে আসছেন বলে অভিযোগ ভুক্তভোগী শিক্ষক-কর্মচারীদের।

ভুক্তভোগীরা আরও জানান, কোনো প্রয়োজনে শিক্ষকরা তার দপ্তরে গেলে নুরুর মাধ্যমে অথবা রেবেকা সুলতানা নিজেই তাকে ফোন করে ডেকে নেন। এরপর বিভিন্ন ইঙ্গিতে তিনি ঘুষ দাবি করেন।

কখনও কখনও নুরুর মাধ্যমে ঘুষের টাকা চান। টাকা না দিলে ফাইল আটকে দেন। বিভিন্ন কাজের জন্য ৫০০ থেকে ২০ হাজার পর্যন্ত ঘুষের রেট। এর বাইরে নিয়োগ সংক্রান্ত বিষয় হলে দরকষাকষি করে কয়েক লাখ টাকা পর্যন্ত ঘুষ নেন রেবেকা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রেবেকা সুলতানা গাজীপুরের একাধিক স্কুলের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অনিয়মের কারণে সেসব স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা তার বিরুদ্ধে ঝাড়ু মিছিলও করেছেন। ২০১০ খ্রিষ্টাব্দের ১৪ ফেব্রুয়ারি তিনি গাজীপুর জেলা শিক্ষা অফিসে শিক্ষা কর্মকর্তা বদলি হয়ে আসেন।

  দেবীদ্বারে হুইল চেয়ার ও শিক্ষা বৃত্তি বিতরণ

২০১৪ খ্রিষ্টাব্দের ৪ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জের শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে বদলি হলেও ‘উচ্চ পর্যায়ে লবিং করে’ ২০১৫ খ্রিষ্টাব্দের ৩ ডিসেম্বর গাজীপুরে ফিরে আসেন। সেই থেকে তিনি গাজীপুরেই আছেন। অভিযোগ আছে, কর্মজীবনের শুরু থেকেই তিনি ঘুষ ও অর্থ আত্মসাৎ করে আসছেন।

জেলা শিক্ষা অফিসের এক প্রবীণ কর্মচারী রেবেকা সুলতানার ‘ঘুষ বাণিজ্য’ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘৩৬ বছরের চাকরি জীবনে আমি এমন ঘুষখোর কর্মকর্তা দেখি নাই। কালিয়াকৈরের থানা শিক্ষা কর্মকর্তা দেলোয়ার হোসেন ও রেবেকা সুলতানা দুজনই যোগসাজশ করে ঘুষের হাট বসিয়েছেন।

থানা শিক্ষা অফিস থেকে ঘুষ খেয়ে কোনো শিক্ষকের কাগজ জেলা শিক্ষা অফিসে রেবেকা সুলতানার কাছে পাঠালে তিনি আবারও সেই শিক্ষকের কাছ থেকে ঘুষ খান। এভাবেই চলছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *