নিজস্ব সংবাদদাতাঃ ‘ছি ছি বেরোবি প্রশাসন, আর কতদিন প্রহসন; ‘ভিসি স্যার সদয় হলে, পরীক্ষা দিব হলে বসে; ‘এক দফা এক দাবি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা চাই পরীক্ষা চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগানে করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অনার্স চূড়ান্ত পরীক্ষা নেওয়ার দাবিতে ঢাকা-কুড়িগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করেন বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর ফটক সংলগ্ন পার্কের মোড়ে এ কর্মসূচি পালন করেন শিক্ষার্থীরা।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখপাত্র (মৌখিক) তাবিউর রহমান প্রধান এবং দু’জন সহকারী প্রক্টর আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সাথে দেখা করে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেয়ার জন্য আজ অথবা কালকের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) কাছে চিঠি দিয়ে পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে সম্মতি চাওয়া হবে। প্রশাসনের এরকম আশ্বাসের ভিত্তিতে মহাসড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেন দুপুর একটা ত্রিশ মিনিটের দিকে শিক্ষার্থীরা।

  বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নতুন বিজ্ঞপ্তী জারি

এর আগে সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই নম্বর ফটক সংলগ্ন পার্কের মোড়ে একই দাবিতে মানবন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে বাংলা, ইংরেজী, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, পদার্থ, রসায়ন ও ইইইসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রায় কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বক্তারা বলেন, যখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় অনলাইনে ক্লাস-পরীক্ষা নিচ্ছেন, সে সময় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের এ ব্যাপারে কোন উদ্যোগ নেই। শেষ সেমিস্টারে আটকে থাকা পরীক্ষাগুলোও নেওয়ার জন্য কোন সিদ্ধান্তে আসতে পারছে না তারা (প্রশাসন)।

বক্তরা আরো বলেন, ‘আমাদের সেই আটকে থাকা পরীক্ষাগুলো যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে সম্পন্ন করা হয়, সেই দাবিতে আমরা মানববন্ধনে দাঁড়িয়েছি। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষাগুলো নিতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করেন শিক্ষার্থীরা।

প্রসঙ্গত, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ছয়টি অনুষদভুক্ত ২১টি বিভাগের মধ্যে প্রায় ১৩টি বিভাগে এক থেকে প্রায় দুই বছরের সেশনজটে জর্জরিত শিক্ষার্থীরা।