করোনা টিকা

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঢাকাঃ বাংলাদেশে এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে প্রতিনিয়ত কমছে কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণকারী মানুষের সংখ্যা।

মঙ্গলবার (০৩ মার্চ) গোটা দেশে মোট টিকা নিয়েছেন আরও ১ লাখ ১৪ হাজার ৬৮০ জন। এর মধ্যে ১৯ জনের শরীরে মৃদু পার্শ্ব  প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। এ নিয়ে টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা দাঁড়াল ৩৩ লাখ ৪১ হাজার ৫০৫ জন। এদিন ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও ৭ জন। একই সময়ে নতুন ৫১৫ জন রোগী শনাক্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে মানুষকে টিকা প্রদানের জন্য মোট ৭ হাজার ৩৪৪টি টিমকে প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রস্তত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে ২ হাজার ৪০০ টিম দিয়ে ১ হাজার ৫টি হাসপাতালে টিকাদান কার্যক্রম চলছে। এসব টিম গত ২৭ জানুয়ারি ২৬ জনকে, ২৮ জানুয়ারি ৫৪১ জনকে টিকা প্রদান করে। প্রথম দুদিন টিকা গ্রহণকারীর পর্যবেক্ষণে রাখার কয়েকদিন পর গত ৭ ফেক্রয়ারি সারা দেশে একযোগে গণটিকা প্রদান কর্মসূচি শুরু হয়। ওইদিন ৩১ হাজার ১৬০ জনকে, পরদিন ৮ ফেব্রুয়ারি ৪৬ হাজার ৫০৯ জন টিকা নেন। এর পর টিকা প্রদানের তৃতীয় দিনে ৯ ফেব্রুয়ারি ১ লাখ ১ হাজার ৮২ জন এবং ১০ ফেব্রুয়ারি সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ লাখ ৫৮ হাজার ৪৫১ জনে। দেশে টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা বাড়তে বাড়তে ১৮ ফেব্রুয়ারি ২ লাখ ৬১ হাজারে ৯৪৫ জনে দাঁড়ায়। এর পর ১৯ তারিখ সরকারি ছুটি থাকায় বন্ধ থাকে আর ২০ ফেব্রুয়ারি থেকে টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা কমতে শুরু করে। ওইদিন টিকা নেন ২ লাখ ৩৪ হাজার ৫৬৪ জন। পরদিন ২১ ফেব্রুয়ারি বন্ধ এবং ২২ ফেব্রুয়ারি টিকা নেন ২ লাখ ২৫ হাজার ২৮০ জন। এর পর থেকে প্রতিদিনই কমছে টিকা গ্রহণকারীর সংখ্যা।

  ভ্যাকসিন যে দেশ থেকেই আসুক সবাই পাবেন

এদিকে আগের দিন দুপুর থেকে গতকাল দুপুর পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ১৫ হাজার ৩২৫টি নমুনা পরীক্ষার মাধ্যমে রোগী শনাক্ত হয়েছে ৫১৫ জন। রোগী শনাক্তের হার ৩.৩৬ শতাংশ। এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত ৪০ লাখ ৭২ হাজার ৯২২টি নমুনা পরীক্ষা করে রোগী শনাক্ত হয়েছে ৫ লাখ ৪৭ হাজার ৩১৬ জন। মোট নমুনা পরীক্ষায় রোগী শনাক্তের হার ১৩.৪৪ শতাংশ। এ ছাড়া এই ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮৯৪ জন। আইসোলেশনে যুক্ত হয়েছেন ৬০ জন এবং ছাড়া পেয়েছেন ৩৪ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন মোট ৯ হাজার ৬৭৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন করা হয়েছে ৬০০ জন এবং ছাড়া পেয়েছেন ৩৪৪ জন। বর্তমানে মোট কোয়ারেন্টিনে আছেন ৩১ হাজার ৮৮৬ জন।

আমাদেরবাণী/ডিও