Shadow

বাগেরহাটে ৬০ টাকার কাঁচামরিচ ২০০টাকা!

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেখ সাইফুল ইসলাম কবির, বাগেরহাট জেলা সংবাদদাতা; জেলায় এক সপ্তাহর ব্যবধানে ৬০টাকা থেকে লাফিয়ে ২০০টাকায় উঠে গেছে কাঁচামরিচের দাম।  বাগেরহাটের ৯উপজেলার গ্রামাঞ্চলের হাট-বাজারে আরো বেশি দামে বিক্রির খবর পাওয়া গেছে। অন্যান্য তরিতরকারির দামও বেড়েছে কেজিতে ১৫-২০টাকা করে। এ অবস্থায় নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে জনমনে।

আজ বুধবার (০১ জুলাই ২০২০) সকালে মোরেলগঞ্জ উপজেলা সদর বাজার কঁচাবাজার ঘুরে দামের এমন তারতম্য দেখা গেছে। গত সপ্তাহের ৫০টাকার করোলা এখন ৭০টাকা, কাঁকরোল ৫০টাকা থেকে ৬০টাকা, পটোল ৪০টাকা থেকে ৫০টাকা, ধুনদল ৩৫টাকা থেকে ৫০টাকা, আলু ২০টাকা থেকে ৩৫টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

হঠাৎ দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে কাঁচামাল ব্যবসায়ী মো আব্দুর রশিদ ফকির,হারুন আর রশিদ ও জাহাঙ্গীর জানান, আগে স্থানীয় এবং পার্শ্ববর্তী মঠবাড়িয়া উপজেলার বড়মাছুয়া ও মাঝের চরের চাষীদের উৎপাদিত কঁচা মরিচসহ বিভিন্ন ধরণের শাক-সবজি পাইকারী কিনে বিক্রি করা হতো। বন্যা ও অতিবৃষ্টির কারণে ক্ষেতে পানিজমে তা নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন ওইসব এলাকা থেকে কাঁচামাল আসছে না। যার ফলে খুলনা থেকে বেশি দামে কিনতে হচ্ছে এসব পণ্য। একারণে বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশি দামে।

  মাগুড়ায় ত্রাণ বঞ্চিতদের খুঁজে খুঁজে ত্রাণ দিল বাসদ

মোরেলগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি সাংবাদিক মেহেদী হাসান লিপন জানান, তরিতরকারির দাম বেড়ে নি¤œ আয়ের মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। তিনি বুধবার সকালে রায়েন্দা কাঁচাবাজার থেকে ১০০গ্রাম কাঁচামরিচ ২০টাকায়, এক কেজি কাঁকরোল ৬০টাকায়, ধুনদল ৬০টাকায়, করোলা ৭০টকায় কিনেছেন। হঠাৎ করে দাম বৃদ্ধিতে তিনি অবাক হয়েছেন।

মোরেলগঞ্জ কাাঁচামালের পাইকারী ব্যবসায়ী মো. আব্দুর রশিদ ফকির বলেন, খুলনার মোকমেও সব মালের দাম বৃদ্ধি। এক সপ্তাহ আগে যে দামে খুচরা ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেছি সেই দামে এখন পাইকারী কিনতে হচ্ছে। যে কারণে খুচরা বাজারে বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে।

আমাদের বাণী ডট কম/০১ জুলাই  ২০২০/পিপিএম

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •