টানা দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলবে এমবাপ্পের দল ফ্রান্স

বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলবে এমবাপ্পের দল ফ্রান্স: মরক্কোকে হারিয়ে ফাইনালে উঠতে পেরে উচ্ছ্বসিত থিও এরনঁদেজ। মরক্কোকে হারিয়ে ফাইনালে উঠতে পেরে উচ্ছ্বসিত থিও এরনঁদেজ। ২০০২ বিশ্বকাপের পর ফ্রান্সই একমাত্র দল যারা টানা ২য় বার – ২০১৮ বিশ্বকাপ ও ২০২২ বিশ্বকাপ খেলবে ।

কাতার বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে মরক্কোকে ২-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করেছে ফ্রান্স। ম্যাচের শুরুতে গোলের দেখা পাওয়া ফ্রান্স দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান দ্বিগুণ করে। মরক্কো দারুণ খেলেও ফ্রান্সের রক্ষণ ভেঙে ম্যাচে ফিরতে পারেনি।

এদিন ম্যাচের মাত্র ৪ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড গোল করে ফ্রান্সকে এগিয়ে দেন থিও হার্নান্দেজ, যেটি ১৯৫৮ সালের পর বিশ্বকাপ সেমিফাইনালের দ্রুততম গোল। সেবার ফ্রান্সের বিপক্ষেই সেমিফাইনালে ব্রাজিলের ভাভা ম্যাচ শুরুর দুই মিনিটের মধ্যে গোল করেছিলেন। পরে ১৭ বছর বয়সী পেলের হ্যাটট্রিকে ৫-২ ব্যবধানে জয় পায় ব্রাজিল।

১৮ ডিসেম্বর লুসাইল স্টেডিয়ামে ফাইনালে আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে ফ্রান্স। ফাইনালে জয় পেলেই দারুণ এক মাইলফলক ছুঁবে দিদিয়ের দেশমের দল। ইতালি ও ব্রাজিলের পর তৃতীয় দল হিসেবে টানা দুই বিশ্বকাপ জেতার সুযোগ ফ্রান্সের সামনে। ১৯৩৪ ও ১৯৩৮ বিশ্বকাপে টানা দুবার চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল ইতালি।

টানা দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলবে ফ্রান্স

চার বছর আগে রাশিয়া বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন হয় ফ্রান্স। কাতারে বুধবার (১৪ ডিসেম্বর) মরক্কোকে ২-০ গোলে হারিয়ে ফের ফাইনালে উঠেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স। দলের এমন সাফল্য দারুণ উচ্ছ্বসিত ফ্রান্সের ডিফেন্ডার থিও হার্নান্দেজ। টানা দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনালে ওঠাকে অবিশ্বাস্য ব্যাপার বলছেন তিনি।

মরোক্কো বনাম ফ্রান্স

রাশিয়ায় শিরোপা উৎসব করা ফ্রান্স চার বছর পর আবারও বিশ্বকাপের ফাইনালে। দলের এমন সাফল্যে উচ্ছ্বসিত থিও এরনঁদেজ। টানা দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ওঠা এই ডিফেন্ডারের চোখে অবিশ্বাস্য ব্যাপার। কাতার আসরে বুধবার রাতে দ্বিতীয় সেমি-ফাইনালে মরক্কোকে ২-০ গোলে হারিয়ে ফাইনালে পা রাখে দিদিয়ে দেশমের দল।

ম্যাচের ৪ মিনিট ৩৯ সেকেন্ডে চমৎকার গোল করে দলকে এগিয়ে নেন এরনঁদেজ। ১৯৫৮ সালের পর বিশ্বকাপের সেমি-ফাইনালে দ্রুততম গোল এটি। সেবার ফ্রান্সের বিপক্ষে দুই মিনিটের মধ্যে গোল করেছিলেন ব্রাজিলের ভাভা। দ্বিতীয়ার্ধে বদলি নামার পরপরই ফ্রান্সের দ্বিতীয় গোলটি করেন রন্দাল কোলো মুয়ানি।

নিজেদের বিশ্বকাপ ইতিহাসে প্রথম তিনবার (১৯৫৮, ১৯৮২, ১৯৮৬) সেমি-ফাইনালে উঠে একবারও ফাইনালে খেলতে পারেনি ফ্রান্স। এরপর চারবার শেষ চারে উঠে প্রতিবারই ফাইনালে নাম লেখাল তারা এবং এই চারবারই জিতল ৯০ মিনিটে। ১৯৯৮ সালে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর ২০০৬ আসরে হয় রানার্সআপ।

ফ্রান্স ফুটবল টিম ১৯৮৬

আবার চ্যাম্পিয়ন হয় তারা ২০১৮ সালের রাশিয়া আসরে। ২০০২ সালে ব্রাজিলের পর প্রথম দল হিসেবে টানা দুইবার বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠল ফ্রান্স। এখন ব্রাজিলের (১৯৫৮ ও ১৯৬২ আসরে জয়ী) ৬০ বছর পর প্রথম দল হিসেবে টানা দুইবার শিরোপা জয়ের হাতছানি তাদের সামনে।

সেই লক্ষ্যে রোববার আর্জেন্টিনার মুখোমুখি হবে তারা। মরক্কোর বিপক্ষে জয়ের পর এরনঁদেজ বললেন, দুইবার ফাইনালে ওঠাই অনেক বড় ব্যাপার। “টানা দুটি বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলা অবিশ্বাস্য ব্যাপার। আমরা দারুণ কাজ করেছি। কঠিন চ্যালেঞ্জ ছিল, কিন্তু আমরা এখন ফাইনালে।”