Shadow

রাজধানীতে কোয়ারেন্টাইনে থাকা পুলিশ ও উপসর্গ নিয়ে সাংবাদিকের মৃত্যু

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

নিজস্ব সংবাদদাতা, ঢাকা;  ঢাকার ওয়ারী পুলিশ ফাঁড়ির এক কনস্টেবল কোয়ারেন্টাইনে থাকা অবস্থায় মারা গেছেন এবং ঢাকার উত্তরায় করোনার উপসর্গ নিয়ে এক সাংবাদিক মারা গেছেন । নিহত পুলিশ সদস্যের  নাম জসিম (৪০) এবং সাংবাদিকের নাম হুমায়ুন কবির খোকনের।

গতকাল মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল ২০২০ ) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে ঐ পুলিশ সদস্য মারা যান তিনি। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, কনস্টেবল জসিম কয়েকদিন ধরে ফকিরাপুলের হোটেল আল সালামে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন।

মঙ্গলবার রাতে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে দ্রুত তাকে একটি অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেওয়া হয়। রাত সাড়ে ১০ টার দিকে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে তার করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে রাখা হয়েছে।

এদিকে রাজধানীতে করোনার উপসর্গ নিয়ে ঢাকার উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে মঙ্গলবার রাত সোয়া ১০টায় মৃত্যু হয় দৈনিক সময়ের আলোর নগর সম্পাদক হুমায়ুন কবির খোকনের।

হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. শাহেদ গণমাধ্যমকে বলেন, রাত সোয়া ৯টার দিকে খোকন ভাইকে নিয়ে আমাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির সময়ই উনার অবস্থা আশঙ্কাজনক ছিল। আমাদের ডাক্তাররা চেষ্টা করার মধ্যেই সোয়া ১০টার দিকে তিনি মারা যান।

খোকন কী সমস্যায় ভুগছিলেন- জানতে চাইলে শাহেদ বলেন, সাসপেক্টেড করোনাভাইরাসে আক্রান্ত। তবে আমরা রোগ আইডেন্টিফাই করার আগেই তিনি মারা গেছেন।

  বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার ওপরে তিস্তা ব্যারেজ, রেড এলার্ট জারি

তার এক সহকর্মী জানান, গত ১৫ দিন ধরে বাসা থেকেই অফিস করছিলেন খোকন। সকালে শ্বাসকষ্ট ও মাথাব্যথা বৃদ্ধি পায়। এরপর শারীরিক অবস্থা অবনতির দিকে গেলে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির অ্যাম্বুলেন্সের মাধ্যমে উত্তরার রিজেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

হুমায়ুন কবির এর আগে দৈনিক মানবজমিন, আমাদের সময়সহ কয়েকটি সংবাদপত্রে কাজ করেন।হুমায়ুন কবির খোকনের বাড়ি কুমিল্লার মুরাদ নগরে। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়ে, এক ছেলে রেখে গেছেন।

দৈনিক সময়ের আলোর নগর সম্পাদক হুমায়ুন কবির খোকনের অকাল মৃত্যুতে শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ।

আমাদের বাণী ডট কম/২৯ এপ্রিল ২০২০/পিপিএ 


শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •