Shadow

রাজবাড়ীতে একদিনে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুই জনের মৃত্যু

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেখ মামুন, রাজবাড়ী জেলা সংবাদদাতা; জেলায়  করোনা উপসর্গ নিয়ে এক বৃদ্ধ ও এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তাদের নমুনা সংগ্রহ করেছে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ। এই দিনে জেলার বালিয়াকান্দিতে ৪ জন ও কালুখালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল হাসানসহ মোট ৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। এ নিয়ে জেলায় এ যাবৎ মোট ৮০ জনের করোনা শনাক্ত হল।

গতকাল রবিবার (০৭ জুন ২০২০) সন্ধ্যায় রাজবাড়ী সদর হাসাপাতালে তাদের মৃত্যু হয়।

রাজবাড়ী সদর উপজেলার মাটিপাড়া রায়নগর এলাকার বাসিন্দা ওই বৃদ্ধ কয়েকদিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।  রবিবার  হাসপাতালে আনার পর সন্ধ্যায় তার মৃত্যু হয়।

একই দিন সদর হাসপাতালের মেডিসিন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনার উপসর্গ নিয়ে ওই যুবক মারা যান।  ওই যুবকের বাড়ি সদর উপজেলার বানিবহ ইউনিয়নের লক্ষী নারায়ণপুরের গ্রামে। শনিবার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

 রাজবাড়ী জেলা সিভিল সার্জন ডা: নুরুল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনের সর্বশেষ (০৭ জুন ২০২০) তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪২ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে মহামারি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯)। ফলে ভাইরাসটিতে মোট ৮৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৭৪৩জন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৬৫ হাজার ৭৬৯ জনে। নতুন করে সুস্থ্য হয়েছে ৫৭৮ জন এবং মোট সুস্থ হয়েছেন ১৩৯০৩ জন। ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘আমরা গত ২৪ ঘণ্টায় ৫২টি ল্যাবের মধ্যে নমুনা সংগ্রহ করেছি ১২ হাজার ৮৪২টি। নমুনা পরীক্ষা করেছি ১৩ হাজার ১৩৬টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯৮৭টি। ২৪ ঘণ্টায় এই সংগৃহীত নমুনা থেকে শনাক্ত রোগী পেয়েছি ২ হাজার ৭৪৩ জন। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে শনাক্ত হয়েছে ৬৫ হাজার ৭৬৯ জন। শনাক্তের হার ২০ দশমিক ৮৮ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে ৫৭৮ জন। মোট সুস্থ হয়েছে ১৩ হাজার ৯০৩ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ দশমিক ১৪ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণ করেছে ৪২ জন। তাদের মধ্যে পুরুষ ৩৫ জন, নারী ৭ জন।

  শূন্যপদে এনটিআরসিএ'র সুপারিশে নিয়োগ পেয়েও বেতন-ভাতাবিহীন ৩ বছর

আমাদের বাণী ডট কম/০৮ জুন ২০২০/সিসিপি

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •