Shadow

‘কোর্ট ম্যারেজ’, ১৪ লাখ টাকা নিয়ে উধাও প্রেমিক, অনশনে প্রেমিকা

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে স্ত্রীর মর্যাদা দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে তিনদিন ধরে অনশন করছেন রিমা আক্তার নামে নরসিংদীর এক তরুণী। গত ২৬ জুলাই শুক্রবার থেকে উপজেলার জালালিয়া গ্রামে অনশন শুরু করেন ওই তরুণী।

রোববার রাতে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তরুণী ওই বাড়িতেই অবস্থান করছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। এ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক জল্পনা কল্পনা চলছে।

জানা যায়, দুবাইতে একই কোম্পানিতে কর্মরত থাকা অবস্থায় জালালিয়া গ্রামের মৃত মোবারক আলীর ছেলে ইয়াওর আলীর সঙ্গে নরসিংদী জেলার খালারচর ইউনিয়নের মানারাকান্দি গ্রামের ফয়েজ উদ্দিনের মেয়ে রিমা আক্তারের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

পরে দু’জন দেশে এসে ২০১৭ সালের ১৯ জুলাই নরসিংদী আদালতে ‘কোর্ট ম্যারেজ’ এর মাধ্যমে বিয়ে করেন। এরপর নরসিংদীতে একটি বাসা ভাড়া করে প্রায় দেড় মাস সংসার করে তারা আবার বিদেশ চলে যান।

রিমা আক্তার জানান, বিদেশে যাওয়ার পর প্রায় ১৪ লাখ টাকা নিয়ে পরিপূর্ণ স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বাড়িতে নেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয় তাকে। সরল বিশ্বাসে দেশে আসার পর বারবার চেষ্টা করেও ইয়াওরের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ করতে পারিনি।

পরে দুবাইতে কোম্পানির অন্যান্য লোক মারফত জানতে পারি সে বিদেশ থেকে কিছুদিন আগে দেশে এসেছে। এ খবর পেয়ে স্ত্রীর মর্যাদার জন্য তার বাড়িতে উঠেছি।

  বান্দরবানে পৌর আ'লীগের ত্রাণ বিতরণ

তিনি বলেন, আমার স্বামীর বাড়ি চিনে এসেছি। ছেলের মাসহ বাড়ির অন্যান্য লোকজন চলে যাওয়ার জন্য হুমকি দিচ্ছে। এতে আমার জীবন হুমকিতে রয়েছে। ইয়াওর আলী গত ৬ মাস আগে পাশের মথুরাপুর গ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করে আরেক মেয়েকে নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালিয়েছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য হায়দার আলী বলেন, মেয়ের সঙ্গে থাকা কাগজপত্র দেখে বারবার বিষয়টি সমাধান করার জন্য ইয়াওর আলীর পরিবারকে অনুরোধ করা হলেও তা হয়নি। এদিকে পালিয়ে যাওয়ায় ইয়াওর আলীর মোবাইলে একাধিকবার কল দিলেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে কমলগঞ্জ থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *