ফারজানার আত্মহত্যা

বরিশালের বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়নের পূর্ব রবিপুর গ্রামে গণধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী ফারজানা আক্তার (১৭) বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন। এ ঘটনায় সোমবার রাতে বাকেরগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন নিহতের পিতা রবিপুরের বাসিন্দা সালাম ফরাজী। ফারজানা বাকেরগঞ্জ কলেজের শিক্ষার্থী। মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বাকেরগঞ্জ থানার ওসি আবুল কালাম।

১২ জুন গণধর্ষণের শিকার হওয়া ফারজানা বিষপান করলে শেরে বাংলা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। ১৬ জুন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। গণধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্তরা হচ্ছেন, তরিকুল ইসলাম, সাওন গাজী, শাওন ফরাজী, জোবায়ের, রাসেদ ও রাজীব।

মামলার বাদী ও নিহতের পিতা সালাম ফরাজী  জানান, ঘটনার দিন দীর্ঘ সময় ফারজানাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। পরবর্তীতে মিয়ার বাড়ির সামনে মেয়েকে বসা দেখতে পাই। এ সময় ফারজানা আমাকে গণধর্ষণের বিষয়টি জানালে আমি তাকে বকাঝকা করে বাসায় নিয়ে আসি।

  জগন্নাথপুরে করোনা শনাক্তের সংখ্যা ১০ জনে

বাসায় এসে পরিবারের সকলের অগোচরে ফারজানা বিষ পান করে। দ্রুত তাকে শেরেবাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ৩দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ১৬ জুন মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে আমার মেয়ে।

এ ব্যাপারে গারুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জুলফিকার হায়দার  বলেন, আমি এ বিষয়টি লোকমুখে শুনেছি। তবে মেয়েটির পরিবার কেউ আমার কাছে অভিযোগ জানাননি। আমাকে জানালে আমি দোষীদের ধরিয়ে দিয়ে পুলিশকে সহায়তা করব। তবে যাহারা এই কাজটি করেছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানালেন তিনি।

বাকেরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ আবুল কালাম  বলেন, মেয়েটির পরিবার ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছে। দোষীদের গ্রেপ্তারে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযান অব্যাহত আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *