Shadow

ডেঙ্গু মোকাবেলায় জরুরি অবস্থা ঘোষণার দাবি বাম জোটের

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

দেশে চলমান ডেঙ্গু পরিস্থিতি মহামারি আকার ধারণ করায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাম গণতান্ত্রিক জোট। জোটের পক্ষ থেকে ডেঙ্গু মোকাবেলায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে। এ দাবি আদায়ে মাসব্যাপী আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর পুরানা পল্টনস্থ মুক্তিভবনের মৈত্রী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জোটের সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সাধারণ সম্পাদক মোশাররফ হোসেন নান্নু।

সংবাদ সম্মেলনে ঘোষিত কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ডেঙ্গু প্রতিরোধের দাবিতে বৃহস্পতিবার জেলা-উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে ৭ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি পেশ, আগামী ৯ ও ১০ আগস্ট ঢাকায় এবং সারা দেশে বিভিন্ন এলাকায় ডেঙ্গু সচেতনতামূলক প্রচারাভিযান এবং আগামী ২০ আগস্ট থেকে ৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সারাদেশে দাবি পক্ষ পালন। এছাড়া জেলা-উপজেলাসহ সর্বত্র সভা-সমাবেশ, পদযাত্রাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালিত হবে।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, জুন মাস থেকেই এডিস মশার আক্রমণে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে প্রথমে রাজধানী ঢাকায় এবং পরবর্তীতে সারা দেশে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে। প্রতিদিনই কোনো না কোনো হাসপাতাল থেকে মৃত্যুর খবর আসছে। অথচ ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রথমে ডেঙ্গুর আক্রমণকে গুজব বলে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যাকে কমিয়ে দেখিয়ে তাদের অবহেলা ও দুর্নীতিকে আড়াল করার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু তারা ব্যর্থ হয়েছেন।

আরো বলা হয়, ঢাকায় হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলো ডেঙ্গু শনাক্তকরণ ও চিকিৎসায় হিমসিম খাচ্ছে। আর এ সুযোগে বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু নিয়ে বাণিজ্য শুরু হয়েছে। ডেঙ্গু সনাক্তকরণ কিট এর কৃত্রিম সংকট তৈরি করে অসাধু ব্যবসায়ীরা ১৪০ টাকার টেস্টিং কিট ৪০০ টাকায় বিক্রি করে মুনাফা লুটছে। আর সরকার, সিটি মেয়রেরা ডেঙ্গু রোধে কার্যকর উদ্যোগ না নিয়ে যে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে তাতে লজ্জা বোধ ও দায়িত্ব পালনে ব্যর্থতার দায় নিয়ে পদত্যাগ করার বদলে জনগণের সাথে রসিকতা করছে। যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

  জননেতা আসাদের হস্তক্ষেপে মনোনয়ন বোর্ডে নাম পৌছাল সামিউল আলম নয়নের

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, সিপিবির প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুল্লহ ক্বাফী রতন, বাসদ কেন্দ্রিয় কমিটির সদস্য বজলুর রশীদ ফিরোজ, বাসদ (মার্কসবাদী)’র নেতা মানস নন্দী, গণসংহতি আন্দোলনের মুনীরউদ্দিন পাপ্পু ও সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের নেতা হামিদুল হক।

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *