ফখরুল

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জনগনের সাথে রাষ্ট্রের একটা চুক্তি আছে যেটাকে বলা হয় সোশ্যাল কন্ট্রাক। এই চুক্তিটা খুব বড় জিনিসি। তার জন্য সংবিধান তৈরী হয়। আর এই সংবিধানের আইনগুলো তৈরী হয় জনকল্যাণের জন্য। বাংলাদেশে সংবিধানে বলা আছে দেশের মালিক হচ্ছে জনগন। ১৮ জুন মঙ্গলবার বিকেলে সদর উপজেলা বিএনপির আয়োজনে মির্জা রুহুল আমিন মিলনায়তন হলরুমে এক কর্মী সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, এই দেশ পরিচালিক হবে জনগনের ইচ্ছায়। সেটা হওয়ার ধরণ হলো ৫ বছর পর পর একটা নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনে যে দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে সে দল সরকার গঠন করতে পাড়বে। এটা জনগনের একটা ব্যবস্থা ছিলো। কিন্তু এই ব্যবস্থাকে যাতে সঠিকভাবে ব্যবহার না করা যায়,নির্বাচন যাতে তারা(আ:লীগ) তাদের মতো করতে পারে সেজন্য এই নিরপেক্ষ তত্ববধায়ক ব্যবস্থাকেই তারা(আ:লীগ) বাতিল করে দিয়েছে।

  এবার ফেঁসে যাচ্ছেন যুবলীগ চেয়ারম্যান ওমর ফারুক

নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হয়েছে বলে দাবি করে ফখরুল আরো বলেন, এবারো আমরা নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। কিন্তু এবারে ভিন্ন পদ্ধতিতে তারা (আ:লীগ) গায়ের জোরে বন্দুক-পিস্তল দিয়ে, রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে নির্বাচনের ফলাফলকে তাদের পক্ষে নিয়ে গেছে। ৫% জনগণও ভোট দিতে যায়নি। দেশের ন্যূন্যতম যে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা সেটাকে ধ্বংস করেছে। নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করেছে।

মহাসচিব আরো বলেন, বিএনপির হাজারো নেতাকর্মীদের নামে মিথ্যা মামলা দেয়া হয়েছে। অনেক নেতাকর্মীকে গুম খুন করা হয়েছে। এটা শুধু মাত্র একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে টিকিয়ে রাখার জন্য। নির্বাচনের নামে নাটক প্রহসন তামাশা করার জন্য তারা(আ:লীগ) এই ব্যবস্থাকে সাজিয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন,জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান,সদর উপজেলা বিএনপির সভাপতি আনোয়ার হোসেন লাল সহ জেলা উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীবৃন্দরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *