অপেক্ষায় এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ২১ লাখ ৩৫ হাজার শিক্ষার্থী

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও দেশের উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সামঞ্জস্য করতে নতুন গ্রেডিং পদ্ধতি চালু করতে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। নতুন পদ্ধতিতে ৯০ নম্বরের বেশি পেলে গ্রেড হবে ‘এক্সিলেন্ট’।

গ্রেডিং পদ্ধতি পরিবর্তনের প্রস্তাবনার সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তারা বলেন, শিক্ষার্থীদের মেধা যাচাই প্রক্রিয়া আরো বস্তুনিষ্ঠ করতেই এই নতুন গ্রেডিং পদ্ধতি চালুর চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। কারণ বর্তমানে ৭৯ থেকে মাত্র ১ নম্বর ওপরে ৮০ নম্বর পেলে ‘এ+’ ধরা হয়, কিন্তু যে শিক্ষার্থী ৮০-এর ওপরে অন্তত আরো ১০ নম্বর বেশি পেয়ে ৯০ পাচ্ছে এমনকি ৯০ থেকে ১০০-এর মধ্যে নম্বর পাচ্ছে, তাকেও ‘এ+’ ই ধরা হচ্ছে। এতে তার মেধার মূল্যায়ন সঠিকভাবে হচ্ছে না বলেই আমরা মনে করি। ফলে ৯০ থেকে ১০০-এর মধ্যে নম্বর পেলে ওই শিক্ষার্থীকে নতুন গ্রেডিং পদ্ধতি অনুযায়ী ‘এক্সিলেন্ট’ মার্ক বলা যেতে পারে।

প্রস্তাবকৃত নতুন গ্রেড হিসেবে, পরীক্ষার সর্বোচ্চ নম্বর ১০০। তবে জিপিএ-৫ পরিবর্তন করে জিপিএ-৪ করা হয়েছে। তার মধ্যে ১০০ থেকে ৯৫ নম্বর পেলে নতুন গ্রেড হিসেবে ‘এক্সিলেন্ট গ্রেড’ যুক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে প্রতি পাঁচ নম্বরের ব্যবধানে ‘এ প্লাস’, ‘এ’, ‘এ মাইনাস’, ‘বি প্লাস’, ‘বি’, ‘বি মাইনাস’, ‘সি প্লাস’, ‘সি’, ‘সি মাইনাস’, ‘ডি প্লাস’, ‘ডি’, ‘ডি মাইনাস’, ‘ই প্লাস’, ‘ই’, এবং ‘ই মাইনাস’ গ্রেড প্রদান করা হবে।

  পরীক্ষার্থী ১ জন, দায়িত্বে ১৪ জন!

অকৃতকার্য বা ফেল হিসেবে আগের মতই ‘এফ’ গ্রেড থাকছে। সর্বনিম্ন পাস নম্বর ৩৩ নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব গ্রেডের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে জিপিএ-৪ থেকে পরবর্তী গ্রেড নির্ধারণ করা হবে।

অপর এক প্রস্তাবে বর্তমান পদ্ধতিতেই সর্বোচ্চ ১০০ থেকে ৯৫ পর্যন্ত পেলে জিপিএ-৪ বা ‘এ প্লাস’ গ্রেড হবে। এখানেও পর্যায়ক্রমে ৫ নম্বর ব্যবধানে গ্রেডের পরিবর্তন হবে। তবে সর্বোচ্চ গ্রেড থাকবে জিপিএ-৪।

মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করে আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, বর্তমানের গ্রেডিং পদ্ধতির সঙ্গে বিশ্বের অনেক দেশের গ্রেডিং পদ্ধতির মিল নেই। দেশের শিক্ষার্থীরা যখন বিদেশি প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করতে যায়, তখন তারা সমস্যায় পড়ে। এ কারণেই এই গ্রেডিং পদ্ধতি পরিবর্তনের চিন্তাভাবনা চলছে।

তিনি বলেন, আমাদের কাছে বিশেষ বিবেচনায় রয়েছে ৮০ থেকে ১০০ নম্বরের গ্রেডিং পদ্ধতিটি। একজন শিক্ষার্থী ২০ নম্বরের ব্যবধান থাকলেও এই কাতারের সবাইকে এ+ দেওয়া হয়। যারা ৯০-এর ওপরে নম্বর পায় তাদের আলাদা ক্যাটাগরিতে ভাবা উচিত। এ ক্ষেত্রে ৯০-এর ওপরে নম্বর পেলে ‘এক্সেলিন্ট’ গ্রেড হবে বলে আমরা প্রস্তাব করতে যাচ্ছি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *