নানান সংকটে ফুলবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স

ফুলবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মোস্তাফিজার রহমান জাহাঙ্গীর, কুড়িগ্রাম জেলা সংবাদদাতা; কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ শয্যায় উন্নীত হলেও বিভিন্ন সংকটের কারণে স্বাস্থ্য সেবা বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলাবাসী। বছরের পর বছর শূণ্য হয়ে আছে ডাক্তারসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদ। কখনো কখনো দু’ চারজন ডাক্তার যোগদান করলেও আবাসনসহ অন্যান্য সুবিধা না থাকায় দ্রুতই তারা বদলী নিয়ে চলে যান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার পদটি শূণ্য আছে। ১০ জন এমবিবিএস ডাক্তারের পদ থাকলেও কর্মরত আছেন ৭ জন। গাইনীসহ গুরুত্বপূর্ণ ৩ টি পদ শূণ্য আছে। নেই কোন দন্ত চিকিৎসক। ৫ টি কনসালট্যান্ট পদের সবগুলোই ফাঁকা পড়ে আছে দীর্ঘদিন। ৬ টি টেকনোলজিষ্ট পদের মধ্যে শূণ্য আছে ৩ টি। নার্সের পদও ফাঁকা ৩ টি। উপ সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারের পদ শূণ্য ৩টি। ২৭ জন অফিস স্টাফ থাকার কথা থাকলেও কর্মরত আছেন মাত্র ১৩ জন। ২৫ টি স্বাস্থ্য সহকারী পদের মধ্যে শূণ্য আছে ১০ টি। বিভিন্ন পদের জনবল সংকটের কারণে পরিপূর্ণ সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

আরও জানা যায়, এখানকার এক্সরে ও আল্ট্রাসনোগ্রাম যন্ত্র বিকল হয়ে পড়ে আছে দীর্ঘদিন। দুটি এম্বুলেন্সের মধ্যে একটি বিকল। কিছুদিন আগে এখানে সিজার করা হলেও গাইনী ডাক্তার না থাকায় সে সেবাটিও বন্ধ হয়ে গেছে। এখানে ডাক্তারদের জন্য নেই নিরাপদ আবাসনের ব্যবস্থা। অতি পুরাতন একটি ডক্টর্স কোয়ার্টার থাকরেও সেটি এখন ভগ্নপ্রায়। বৃষ্টির সময় ছাদ চুইয়ে পানি পড়ে। অনেক স্থানে পলেস্তারা খসে পড়ে ছাদের রড বের হয়েছে। ওয়ালগুলোতে ফাটল ধরেছে। ওয়ালে ধরেছে শ্যাওলা, জন্মেছে বট গাছ। যেকোন সময় ভবনটি ধ্বসে পড়ে ঘটতে পারে মারাত্মক দূর্ঘটনা। এ কারণে ঝুঁকি নিয়ে কোন ডাক্তার এখানে থাকেন না। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টির সময় হাসপাতাল ক্যাম্পাসের চতুর্দিকে পানি জমে যায়। তাই বর্ষা মৌসুমে রোগীদের পড়তে হয় বিড়ম্বনায়।

  বালিয়াডাঙ্গীর বড়বাড়ী-ভানোর ইউনিয়নে আমন ধান সংগ্রহে লটারি

এ ব্যাপারে ভারপ্রাপ্ত উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোহাম্মদ রাজু মিয়া জানান, আমাদের সদিচ্ছা থাকলেও ডাক্তারসহ অনেক স্টাফের পদ শূণ্য থাকায় আমরা পরিপূর্ণ সেবা মানুষকে দিতে পারছি না। পদগুলোতে নিয়োগ দিলে এবং বিকল যন্ত্রপাতিগুলো ব্যবহার উপযোগী করা হলে সেবার মান সন্তোষজনক পর্যায়ে নিয়ে যেতে পারবো। এছাড়া ডক্টর্স কোয়ার্টারটি অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ। তাই ডাক্তারদের বাইরে থাকতে হচ্ছে। কোয়ার্টারটিকে পরিত্যাক্ত ঘোষণা করে নতুন ভবণ নির্মাণ করার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

শেয়ার করুনঃ
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •