সফলদের বীরত্ব গাঁথার গল্প

হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রমে সফলদের বীরত্ব গাঁথার গল্প নিয়ে ‘আমাদের বাণী’

চঞ্চল হোসেন। তাকে জেলায় এক নামেই চেনে। তেমন কিছু ছিলনা তার। কঠিন পরিশ্রম আর মেধা কাটিয়ে এখন তিনি কোটিপতি। নাম-দাম জশ সবই তার হয়েছে। সুনামের কমতি নেই। তিনি দেশীয় মাছের ডিম থেকে রেণু উৎপাদন করে ভাগ্য বদলেছে চঞ্চল হোসেন নামে এক যুবকের।

এখন তিনি নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় যুবকদের রোল মডেল। মাছের রেনু উৎপাদনে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দুইবার পুরস্কার পেয়েছেন। খামারের প্রচার ও প্রসারের জন্য সরকারি সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি। তার স্বপ্ন তিনি আরও সামনে যেতে চান। বেকারদের কাজ দিতে চান। স্বাবলম্বি করতে চান।

সংসারে অভাবের তাড়নায় এক সময় মাছের আড়তে কাজ করতেন বদলগাছী উপজেলার কাশিমালা গ্রামের চঞ্চল হোসেন। অভাবের কারণে পড়াশুনা বেশি দূর এগোয়নি। ২০০৪ সালে ৮ম শ্রেণিতে পড়াশোনার সমাপ্তি ঘটে। মাছের আড়তে কাজ করার সময় চঞ্চল দেখতেন দেশীয় মাছের দাম অন্যান্য মাছের তুলনায় তুলনামূলক বেশি।

এরপর বিলুপ্ত প্রজাতির দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদনের চিন্তা আসে তার মাথায়। মাছের আড়তের কাজ ছেড়ে নিজেই কিছু করার পরিকল্পনা করেন। ২০০৪ সালে ৯ হাজার টাকা দিয়ে একটি পুকুরে দেশীয় মাগুর মাছ চাষ শুরু করেন। সফলতা পাওয়ায় পরের বছরে আরও একটি পুকুর লিজ নিয়ে মাছ চাষ করেন।

পর্যায়ক্রমে ১৬টি পুকুরে দেশীয় প্রজাতির বিভিন্ন মাছ চাষ করেন। মাছ চাষ করতে গিয়ে তিনি উপলদ্ধি করেন দেশীয় মাছের রেণু সংগ্রহ করা কষ্টকর। এক সময় ডিম ও রেণুর চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় নিজেই বাড়িতে শুরু করেন দেশীয় মাছের রেণুর হ্যাচারি। বড় মেয়ে সুবর্ণার নামে খামারের নাম দেন ‘সুবর্ণা মৎস্য হ্যাচারি’।

তারপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বছর বছর বাড়তে থাকে রেণুর চাহিদা। চঞ্চল তিন সন্তানের জনক। বড় মেয়ে সুবর্ণা স্থানীয় একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণিতে ও দ্বিতীয় মেয়ে সখি প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। সবার ছোট ছেলে সৌরভ।

তার হ্যাচারিতে দেশীয় শিং, মাগুর, টেংরা, গুলসা টেংরা, পাবদা, কৈ, চিতল, গুচি, পুঁটি, তেলাপিয়া, পাঙ্গাস ও বাইমসহ কয়েক প্রজাতির মাছের রেণু উৎপাদন করা হয়।হ্যাচারি থেকে প্রতিমাসে প্রায় ৩০০ কেজি রেণু উৎপাদন করা সম্ভব। তবে প্রচারের অভাবে তেমন সাড়া মিলছে না। খামারে পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করছে ১৫ জন শিক্ষার্থী। অন্যান্য মাছের তুলনায় দেশীয় মাছের চাহিদা এবং দাম ভালো পাওয়া মাছ চাষিদের কাছে বাড়ছে দেশীয় মাছের রেণুর চাহিদা।

  দেবীদ্বারে যুবকের ফেসবুকে পোষ্ট দেখে বাড়ীতে ত্রাণ পাঠালেন চেয়ারম্যান

তার খামার থেকে বগুড়া, জয়পুরহাট, দিনাজপুর, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ কয়েকটি জেলায় রেণু সরবরাহ করা হয়ে থাকে। সরকারের সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা ও সহযোগিতা পেলে চঞ্চল হোসেনের খামারের পরিধি আরও বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

তিনি এখন জেলা নয় দেশের একজন সফল খামারি। চঞ্চল হোসেন ক্যাম্পাসলাইভকে জানান, এক সময় ডোবাতে দেশীয় মাছ পাওয়া যেত। কিন্তু ফসলে কীটনাশক ব্যবহারের ফলে সেসব মাছ মারা যাচ্ছে। এতে করে দেশীয় মাছ এখন বিলুপ্ত প্রায়। এছাড়াও পুকুরে কীটনাশক ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই চিন্তাধারা থেকে দেশীয় মাছকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করতে দেশীয় মাছের রেণুর হ্যাচারি করেছি।

এতে করে বাহির থেকে রেণু কিনতে হচ্ছে না। এখন নিজের হ্যাচারি থেকে বিভিন্ন জেলায় রেণু সরবরাহ করছি। বর্তমানে এখন আমার প্রজেষ্ট প্রায় দুই কোটি টাকার। হ্যাচারি থেকে প্রতিমাসে প্রায় ৩০০ কেজি রেণু উৎপাদন করা সম্ভব। তবে প্রচারের অভাবে তেমন সাড়া মিলছে না। ভবিষ্যত পরিকল্পনার বিষয়ে তিনি বলেন, কয়েকটি জেলায় দেশীয় মাছের হ্যাচারি করার ইচ্ছা আছে। কারণ অনেক দূর-দূরান্ত থেকে মাছ চাষিরা রেণু নিতে আসেন।

তারা বাড়ি ফেরার পথে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেয়ায় সেই রেণুর অনেক সময় সমস্যা হয়। বাহিরের জেলাগুলোতে হ্যাচারি করা হলে কষ্ট করে আর এখানে আসতে হবে না। এজন্য প্রয়োজন সরকারের আর্থিক সহযোগিতা। জয়পুরহাটের মৎস্যচাষি আলমগীর কবীর জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে মাছ চাষ করছেন। লোকমুখে শুনেছেন ‘সুবর্ণা মৎস্য হ্যাচারি’ থেকে দেশীয় মাছের রেণু সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

অন্যান্য মাছের খরচ বেশি এবং দামও তুলনামূলক কম। তাই দেশীয় মাছ চাষের প্রতি তিনি আগ্রহ বাড়াতে চান। দেশীয় মাছে খাবারসহ অন্যান্য খরচ কম লাগে। এছাড়া দামও বেশি পাওয়া যায়। আরাফাত হোসেন রাসেল, আসলাম হোসেন, শাকিল হোসেনসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, মৎস্য হ্যাচারিতে তাদের মতো ১৫ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করেন। রেণুর নিয়মিত পরিচর্যা, খাবার দেয়া, পানি পরিবর্তনসহ আনুষাঙ্গিক কাজ করতে হয় তাদের। এতে করে মাসে তারা ৬-৯ হাজার টাকা করে পারিশ্রমিক পান।

নওগাঁ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ বলেন, চঞ্চল হোসেন স্বল্প সময়ে হ্যাচারিতে সফল হয়েছেন। তার কাছ থেকে মৎস্যচাষিরা দেশীয় মাছের রেণু সংগ্রহ করে থাকেন। মাছ চাষ করায় একদিকে যেমন আমিষের চাহিদা পূরণ হচ্ছে, অপরদিকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন চাষিরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *