ঠাকুরগাঁওয়ে প্রেমর করাণে আত্মহত্যা করল মাদ্রাসা ছাত্রী

ঠাকুরগাঁও জেলার বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার চাড়োল ইউনিয়নের চাড়োল মাহাতপাড়া গ্রামে প্রেম করার অপরাধে আত্মহত্যা করেন বুলবুলি (১৬) নামে এক মাদ্রাসা ছাত্রী। ৯ এপ্রিল মঙ্গলবার সকাল ১১টায় চুপিসরে ঐ মাদ্রাসা ছাত্রীর লাশ দাফন করা হয়।

বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশ ও চাড়োল ইউপি চেয়ারম্যান দিলিপ কুমার চ্যাটার্জী (বাবু) বলেছেন তাদের জানানো হয়নি।

পারিবারিব সূত্রে জানা যায়, বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার চাড়োল ইউনিয়নের চাড়োল মাহাতপাড়া গ্রামের বজলার রহমানের কন্যা বুলবুলি আকতার লাহিড়ী ফাজিল মাদরাসার এইচ,এস,সি ১ম বর্ষে লেখাপড়া করে আসছিল। মাদ্রাসায় পড়াশুনার সুবাদে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার পাড়িয়া ইউনিয়নের রায়মহল গ্রামের সোহেল নামে এক যুবকের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এদিকে সপ্তাহ খানেক পূর্বে বুলবুলি প্রেমিকের সাথে ঘর বাধার আশায় বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়। কিন্তু প্রেমিক সোহেল তাকে আপাতত বিয়ে করতে অস্বীকার করলে পরদিন বাড়ি ফিরে আসে প্রেমিকা বুলবুলি। এ নিয়ে পারিবারিক লোকজন তার উপর অসন্তুষ্ট হয়ে পড়ে এবং তড়িঘড়ি করে তাকে অন্যত্র বিয়ে দেওয়ার জন্য পাত্র খুঁজতে থাকে। এদিকে ৮ এপ্রিল সোমবার বিকেলে বুলবুলির পিতা ঘটক সহ ছেলে দেখতে যায়। রাত ৯ টার দিকে তিনি বাড়ি ফিরে তার কন্যা বুলবুলিকে পাশ্ববর্তী গ্রাম্য চিকিৎসক আব্দুল লতিফ এর কাছে নিয়ে গেলে বুলবুলিকে মৃত ঘোষনা করে। এলাকার লোকজন জানান, গ্যাস টেবলেট খেয়ে বুলবুলি আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু এ ঘটনার পর পরিবারের লোকজন থানা পুলিশ ও চেয়ারম্যান না জানিয়ে ৯ এপ্রিল মঙ্গলবার তড়িঘড়ি করে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয় বুলবুলিকে।

  ইচ্ছেমত বিদ্যালয়ে আসা প্রাথমিকের ৩ শিক্ষককে শোকজ

এ ব্যাপারে মেয়ের চাচী হাসিনা বেগম জানান, কয়েক দিন আগের ঘটনায় বুলবুলিকে তড়িঘড়ি করে অন্যত্র বিয়ে দেওয়ার আয়োজন করে। কিন্তু তাতে রাজি হয়নি সে, এ কারণে ঘটনার পূর্বদিন রাতে তাকে বেধরক মারপিট করে তার মা ও বাবা। এ কারণে বুলবুলি বিষ পান করে আত্মহত্যা করেছে বলে মনে হয়।

স্থানীয় গ্রাম পুলিশ দুলাল হক বলেন, মঙ্গলবার রাতে বুলবুলির অবস্থা খারাপ শুনে আমি ছুটে যাই। তার মুখ পরীক্ষা করে দেখি বিষপান করেছে কি না। বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানকে অবগত করি। কিন্তু থানায় জানাইনি। ২নং চাড়োল চেয়ারম্যান দিলিপ কুমার চ্যাটার্জি জানান, চাড়োল মাহাতপাড়া গ্রামের এক মাদ্রাসা ছাত্রী মারা গেছে শুনেছি। কিন্তু কি ভাবে মারা গেছে জানি না। এমনকি পরিবারের লোকজনও জানায় নি মেয়েটির মৃত্যুর প্রকৃত তথ্য।

এ ব্যাপারে বালিয়াডাঙ্গী থানার ওসি মোসাব্বেরুল হক জানান, প্রেমের কারণে এক মাদ্রাসা ছাত্রী মৃত্যুর খবর শুনেছি। মেয়েটির স্বাভাবিক মৃত্যু হয়ে থাকলে থানায় অবগত করার বিধান রয়েছে। পুলিশকে না জানিয়ে দাফনের বিষয়টি রহস্য জনক।

আমাদের বাণী-আ.আ.হ/মৃধা

[wpdevart_like_box profile_id=”https://www.facebook.com/amaderbanicom-284130558933259/” connections=”show” width=”300″ height=”550″ header=”small” cover_photo=”show” locale=”en_US”]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *