Shadow

মতামত

বর্তমান প্রজন্ম: স্মার্টফোনের অপব্যবহার

বর্তমান প্রজন্ম: স্মার্টফোনের অপব্যবহার

মতামত
আশুক আহমদ; আধুনিক প্রযুক্তি দিন দিন মানুষের জীবনযাত্রা ডিজিটালাইজড করে সহজ এবং আরামদায়ক করে দিচ্ছে। বিশ্বায়নের যুগে সারা বিশ্ব যেমন গ্লোবাল ভিলেজ, মুঠোফোনের বদৌলতে বিশ্ব তেমনই এখন হাতের মুঠোয়। প্রযুক্তির উৎকর্ষতার ফলে মুঠোফোন আরও আধুনিক ও স্মার্ট চেহারা নিয়ে আমাদের মধ্যে স্মার্টফোন নামে আবির্ভূত হয়েছে। মুঠোয় নিয়ে চলার জন্য হাতে উঠেছে স্মার্ট চেহারার মুঠোফোন। এখন স্মার্টফোনে আমরা কী না করতে পারি? সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষায় ফেসবুক, টুইটার, ইন্সটাগ্রাম, হোয়াটস অ্যাপ, ইমো, ভাইবার, জুম ইত্যাদি টাকা পয়সা লেনদেনে ডিজিটাল ব্যাংকিং সেবা থেকে শুরু করে, ব্যাকআপ বা তথ্য সংরক্ষণ, খেলাধুলা, টিভি, বিনোদন, চিঠিপত্র, কেনাকাটা, পরিবহন টিকেট, নিজের স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর, চলাফেরায় জিপিএস রোড ম্যাপ, বাজারের ফর্দ, ভর্তি, ক্লাস-রুটিন, এলার্ম ইত্যাদি সবকিছুই হচ্ছে স্মার্টফোনে। দৈনন্দিন জীবনের শত শত কাজ এই স্মার্
‘পাটশিল্প ধ্বংসের পাঁয়তারা রুখতে হবে’

‘পাটশিল্প ধ্বংসের পাঁয়তারা রুখতে হবে’

মতামত
মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম; হাটে-বাজারে মানুষ ‘ভালুকের খেলা’ দেখার জন্য ভিড় করে। মানুষের নজর তখন ভালুক-নাচের দিকে নিবদ্ধ থাকে। সেই সুযোগে ভিড়ে লুকিয়ে থাকা পকেটমার নির্বিঘেœ পাবলিকের পকেট কেটে নেয়। এমন ঘটনাই এখন ঘটছে দেশের সরকারি পাটকলগুলো নিয়ে। মানুষ এখন ‘করোনা বিপর্যয়ে’ দিশেহারা। এখন তাদের প্রধান নজর ‘করোনা’য় কেন্দ্রীভূত। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে গত ২ জুলাই সরকারি পাটকলগুলো বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেছে। দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলো বন্ধ করে দেওয়ার প্রাথমিক কাজগুলো শুরু হয়ে গেছে। ঘোষণার পর পরই পাটকলগুলোর গেটে-গেটে জলকামানসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। শ্রমিক নেতাদের ‘উঠিয়ে নেওয়া’ ও ‘আটক করা’ শুরু হয়েছে। সরকার পাটকল শ্রমিকসহ জনগণের বিরোধিতা ও সম্ভাব্য সংগ্রামকে ভয় পাচ্ছে। সে কারণেই সে এসব ব্যবস্থা নিচ্ছে। এতেই প্রমাণ হয়, পাটকল বন্ধের সরকারি ঘ
সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন, দায় কার? 

সরকারিকৃত কলেজ শিক্ষকদের মানবেতর জীবন যাপন, দায় কার? 

মতামত
মোহাম্মদ শামীম উদ্দিন; নীরবে ভিজে যায় চোখরে পাতা, কষ্টরে আঘাতে বেড়ে যায় বুকের ব্যথা, জানিনা এই ভাবে কাটাতে হবে কতদিন আমাদের এই জীবনে কি আসবে না সুখের দিন মি. “ক” ও “স” সাহেবরা কি সর্বদা থাকবে রঙিন! বলতে চেয়েও কিছু কিছু কথা আছে বলতে পারিনা যাচাই বাছাই নামে কালক্ষপেণ তাও সইতে পারিনা! চাই অতি দ্রুত মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ শিক্ষকদের মনে আবারো ফিরে আসুক সুখের আবেগ। ৩০ জুন ২০১৬ সালের সন্ধ্যাটা ছিল খুবই আনন্দের। পরিবারের সকলের মুখে ছিল অফুরন্ত হাসি কেননা সবাইর ভিতর কাজ করছিল কলেজ সরকারিকরণের রেষ। আজ ৩০ জুন ২০২০, কলেজ সরকারিকরণের ৫ বছর পূর্তি। কলেজ সরকারিকরণ চলমান তবে আনন্দের বিন্দুমাত্র রেষ নেই কারোর মনে। আছে শুধু হতাশা আর উৎকন্ঠা। ঘটনা-১ঃ আমার পাশের কলেজ মাটিরাঙ্গা সরকারি ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আমার বাবার বাল্যবন্ধু। তিনি ৩০ জুন ২০১৬ সালের সরকারিকরণের নিউজটা পেয়েছিলেন একদিন প
শিক্ষাবান্ধব সরকারের গলার কাঁটা শিক্ষা আমলা

শিক্ষাবান্ধব সরকারের গলার কাঁটা শিক্ষা আমলা

মতামত
 মোহাম্মদ আলী শামীম; শিক্ষা বিভাগের যুগোপযোগী উন্নয়নের জন্য প্রথমেই ধন্যবাদ জানাতে হয় বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।স্বাধীনতার পূর্বে এদেশের মানুষ মানব সম্পদে রূপান্তরিত হবার জন্য তেমন কোন উন্নয়ন পশ্চিম পাকিস্তানি শাসক গোষ্ঠী কিংবা ব্রিটিশরা করেনি।যার প্রমান স্বাধীন বাংলাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্হাপনের ইতিহাস দেখলে সহজে অনুমান করা যায়। স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের প্রায় স্হানে এবং এরপর দেশের সকল এলাকায় বেসরকারি ভাবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্হাপিত হয়।যার মূল উদ্দেশ্য হলো স্বাধীন বাংলাদেশের জানগণ শিক্ষায় শিক্ষিত হওয়া।মানব সম্পদে গঁড়ে উঠা।স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের শিক্ষা ব্যবস্থা উন্নতির জন্য বঙ্গবন্ধুর হৃদয় দিয়ে কাজ করেছিলেন।পঁচাত্তরের ১৫ ই আগস্টের পর সেঠি তেমন বিস্তার ঘটেনি। তারপরও দেশ প্রেমিক জনতা ও ব্যক্তি উদ্দ্যোগে এলাকা,গ্রাম,মহল্লা,শহর, উপ শহর ও মহানগরের বিভিন্ন স্হানে, বেসরক
সাবেক স্পিকার হুমায়ূন রশীদের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকীতে জানাই শ্রদ্ধাঞ্জলি: শাহ মনসুর

সাবেক স্পিকার হুমায়ূন রশীদের ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকীতে জানাই শ্রদ্ধাঞ্জলি: শাহ মনসুর

মতামত
শাহ মনসুর আলী নোমান ; আজ (১০ জুলাই)জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৪১তম অধিবেশনের সভাপতির দায়িত্ব পালনকারী, সাবেক পররাষ্ট্র মন্ত্রী, পররাষ্ট্র সচিব ও স্পিকার হুমায়ূন রশীদ চৌধুরীর ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী। হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী ২০০১ সালের ১০ জুলাই স্পিকারের দায়িত্ব পালনকালে ইন্তেকাল করেন। তিনি দেশের প্রথম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়) প্রতিষ্ঠা করে সিলেট সহ সারা বাংলাদেশে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় বিপ্লব সাধন করেন। আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীকে মরণোত্তর স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত করে। মরহুম হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী ছিলেন এক জন পেশাদার কূটনীতিবিদ। তিনি ১৯২৮ সালের ১১ নভেম্বর সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা আব্দুর রশীদ চৌধুরী এবং মাতা সিরাজুন্নেসা চৌধুরী। তারা দুই জনেই ছিলেন প্রখ্যাত রাজনীতিবিদ।
প্রাথমিকে প্যানেলে শিক্ষক নিয়োগের দাবিতে ৭ দফা দাবি বঞ্চিতদের

প্রাথমিকে প্যানেলে শিক্ষক নিয়োগের দাবিতে ৭ দফা দাবি বঞ্চিতদের

মতামত
মোঃমাহমুদুল হাসান সোহাগ;  প্রাইমারিতে সহকারি শিক্ষক নিয়োগ এর জন্য প্রাইমারি অধিদপ্তর ২০১৪ সালের ১৪ ই সেপ্টেম্বর রাজস্ব খাতে সার্কুলার দেয় উক্ত সার্কুলারের পরীক্ষা পুল ও প্যানেল এর রিটের কারনে চার বছর লসের কারনে ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত হয়।এতে তখন ১৪ লাখ প্রার্থীর সহিত আবেদন করে ২৯৫৫৫ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষাতে উত্তীর্ন হয়।কিন্তু তখনকার নিয়োগে ১০০০০ নেওয়ার কথা থাকলে চার বছর পরে এসেও দপ্তর ৯৭৬৭ জনকে চুড়ান্তভাবে সুপারিশ করে নিয়োগ তাই।তাই তখনকার নিয়োগে ২৩৩ জন কম নেওয়া হয়।এতে চার বছর পরে এসেও রিটেন পাশ এসব প্রার্থীরা শিক্ষক হতে না পেরে চরমভাবে হতাশ হয়।কারন তারা এ চার বছরে কোন নতুন সার্কুলার ও প্রাইমারিতে রাজস্ব খাতে তারা পাই নাই এবং এদের অনেকে এত বছর গ্যাপের কারনে মাত্র ১ টি রাজস্ব খাতের সার্কুলারে আবেদন এর সুযোগ পাই।এমনকি সরকারি চাকরির বয়স না থাকায় প্রাইমারি দপ্তরের ২০১৮ সালের জুলাই মাসের দেওয়া সার
‘এন্টিবডি কিট থেকে পাটকল’

‘এন্টিবডি কিট থেকে পাটকল’

মতামত
মুহম্মদ জাফর ইকবাল; বেশ অনেকদিন হলো আমি আমার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অবসর নিয়েছি। তারপরও আমার সহকর্মীরা যারা একসময় প্রায় সবাই আমার ছাত্র-ছাত্রী ছিল, তাদের সঙ্গে আমার যোগাযোগ আছে। আমি কারণে অকারণে তাদের ফোন করি, তারাও নিয়মিত আমার খোঁজখবর নেয়। আজকাল জুম-মিটিং নামে এক ধরনের কায়দা বের হয়েছে সেটা ব্যবহার করে যারা দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে, যারা আমেরিকা-কানাডা অথবা ইউরোপে আছে কিংবা যে করোনা আক্রান্ত সন্দেহ করে আইসোলেশনে আছে, তাদের সবার সঙ্গে একসঙ্গে গল্পগুজব করা যায়। একাধিকবার আমি সেভাবে তাদের সঙ্গে রীতিমতো আড্ডা দিয়েছি। শেষবার তাদের সঙ্গে কথা বলার সময় আমার একজন ছাত্রী আমাকে জানাল, ‘স্যার, ফেব্রুয়ারি মাসে আমার খুব বিচিত্র একটা অসুখ হয়েছিল, জ্বর, গায়ে ব্যথা, তার সঙ্গে খুবই অদ্ভুত এক ধরনের কাশি। কাশতে কাশতে মনে হয় গলা থেকে রক্ত বের করে ফেলি কিন্তু এক ফোঁটা কফ নেই। সবচেয়ে বিচিত্র ব্যাপার হচ্ছে খাবা
বন্যা ও নদীভাংগন প্রতিরোধ

বন্যা ও নদীভাংগন প্রতিরোধ

মতামত
কাজী আবু মোহাম্মদ খালেদ নিজাম; ভাটির দেশ বাংলাদেশ। অধিক বৃষ্টিপাত এবং উজান থেকে নেমে আসা পানির ঢলে এদেশে প্রায় প্রতি বছরই বন্যা হয়। ডুবে যায় ঘরবাড়ি, মাঠ-ঘাট। ইতিমধ্যে বেশকিছু অঞ্চলে উজানের পানি প্রবেশ করার কারণে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। কষ্টে পড়েছে হাজার, লক্ষ মানুষ। নষ্ট হয়েছে ফসলি জমি। আবহাওয়া অধিদপ্তর চলতি বছর দেশে বেশি বৃষ্টি, নদীভাংগন ও পাহাড় ধসের পূর্বাভাস দিয়েছে। প্রবেশ করেছে বর্ষাকালও। যদিও বর্ষার সেই চিরচেনারূপ সচরাচর দেখা যায়না এখন। বন্যা ও নদীভাংগনের পাশাপাশি এবার নতুন করে বৈশ্বিক মহামারি করোনার তাণ্ডবে আমাদের দেশসহ গোটা বিশ্ব বলতে গেলে পর্যুদস্ত। বাড়ছে সংক্রমন ও মৃত্যু। এর শেষ কবে সেটা কেউ বলতে পারছেনা। ক্রমশ: বৃদ্ধি পাচ্ছে নদীভাঙন। যে কারণে নদীতীরের জনপদ নদীগর্ভেই বিলীন হওয়ার শংকায় থাকে প্রতিনিয়ত। ভিটেমাটি হারিয়ে নিঃস্ব হয় সাধারণ মানুষ। দেশের বিভিন্ন শহরে নদীভাংগনের শিকার ম
সততার মাধ্যমে কাজ করার সুযোগ পাক আমাদের আইনজীবীরা:এড.যূথী

সততার মাধ্যমে কাজ করার সুযোগ পাক আমাদের আইনজীবীরা:এড.যূথী

মতামত, সারাদেশ
এডভোকেট নাহিদ সুলতানা যূথী: করোনার সাথে প্রায় ৫ মাস , আমার ভাবনায় আইনজীবীরা কেমন আছে , কিভাবে চলছে আইনজীবীরা, কেউ কি ভেবেছেন ? ভেবে থাকেলে ধন্যবাদ।  আমরা সাধারণ আইনজীবীরা বেশি ,বিশেষ বিশেষ জনেরা কম , কয়জনের অনেক টাকা আছে ,কয়জনের জমান টাকা আছে , কয়জনের দুর্নীতির টাকা আছে , কয়জনের অগাধ টাকা আছে ,কয়জন বাড়িভাড়া দিতে পারছে ,কয়জন গাড়ি হাঁকিয়ে আসে ,কয়জন পাবলিক ট্রান্সপোর্ট এ চলাচল করে ,কয়জনের prado চালায়? সরকারি আইনজীবীরা তো নিরাপদে আছে কারণ তারা একটা ফিক্সড আমাউন্ত পাচ্ছে বাড়িতে বসে ই কিন্তু সাধারণ আইনজীবীরা কেমন আছেন ? আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি ভাল নেই সাধারণেরা । ২০০৯ থেকে অনেকেই সরকারের সুবিধা নিচ্ছে পুরো পরিবার ,আমি দেখেছি সেই কান্না , চাকরি তো ভাল ই লাগে কিন্তু যখন আমাদের আইন কর্মকর্তাদের বাদ দেয়া হোল হুট করে , সেদিন ওদের মুখের দিকে তাকাতে পারি নাই ,ওরা কাঁদতে পারে না কিন্তু ওদের চোখ
পরিবেশ ভাবনা

পরিবেশ ভাবনা

মতামত
আশুক আহমদ;  পৃথিবী নামক এ গ্রহটিকে মহান আল্লাহ তাঁর শ্রেষ্ঠ জীবের বসবাসের উপযোগী করে গড়েছেন। মানুষ এ গ্রহের বাসিন্দা। পৃথিবী ছাড়া বুধ, মঙ্গল বা অন্য কোনো গ্রহে মানুষ বসবাসের বা বাঁচার মতো অনুকূল পরিবেশ নেই। আমাদের চারপাশের মানুষ, পশু-পক্ষী অর্থাৎ সব ধরনের প্রাণি, মাটি, পানি, বায়ু, গাছপালা, বনজঙ্গল, চন্দ্র, সূর্য, মেঘমালা, পাহাড়, খাল-বিল, নদী, সাগর ইত্যাদি আল্লাহর এসব সৃষ্টিই হলো প্রাকৃতিক পরিবেশ। আর মানুষ বেঁচে থাকার তাগিদে যে ঘরবাড়ি, রাস্তাঘাট, যানবাহন, পুল-সাঁকো, কল-কারখানা, দিঘি, পুকুর, কুয়া, খেলার মাঠ, স্কুল-কলেজ, নগর-বন্দর প্রভৃতি তৈরী করছে তা হলো আমাদের সামাজিক পরিবেশ। উইকিপিডিয়ায় বলা হয়েছে, পরিবেশ বলতে কোনো ব্যবস্থার ওপর কার্যকর বাহ্যিক প্রভাবকসমূহের সমষ্টিকে বোঝায়। যেমন: চারপাশের ভৌত অবস্থা, জলবায়ু ও প্রভাব বিস্তারকারী অন্যান্য জীব ও জৈব উপাদান ইত্যাদির সামষ্টিক রূপই হলো পরিবেশ